আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন ’২৪ সালের ৪ জানুয়ারি!

পোস্ট এর সময় : ১১:৪৯ অপরাহ্ণ , ভিজিটর : ১৩

নিজস্ব প্রতিবেদক:-আগামী ২০২৪ সালের জানুয়ারি মাসের প্রথম সপ্তাহেই অনুষ্ঠিত হচ্ছে দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন। ইতিহাস পর্যালোচনায় দেখা যায়, জাতীয় নির্বাচন অনুষ্ঠান বৃহস্পতিবার করার একটি রেওয়াজ রয়েছে। সে হিসেবে ৪ জানুয়ারি দ্বাদশ সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। নির্বাচন কমিশনার আনিছুর রহমান শনিবার জানিয়েছেন, জানুয়ারির প্রথম সপ্তাহে জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। তবে কোনো তারিখে হবে সেটা তিনি উল্লেখ করেননি। সে ক্ষেত্রে অতীতের সব জাতীয় নির্বাচন বৃহস্পতিবার হতে দেখা গেছে।
নির্বাচন যদি এক সপ্তাহ পেছায়, তা হলে ১১ জানুয়ারি বৃহস্পতিবার হতে হবে। সে ক্ষেত্রে নির্দিষ্ট সময়ে সংসদ অধিবেশন বসার বাধ্যবাধকতা ঝুঁকি থেকে যায়। কারণ একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর প্রথম সংসদ অধিবেশন বসেছিল ২০১৯ সালের ৩০ জানুয়ারি। নির্বাচন অনুষ্ঠানের পর সংসদ সদস্যদের শপথ, মন্ত্রীদের শপথ ও সরকার গঠন করার বেশকিছু আনুষ্ঠানিকতা থেকে যায়। ফলে নতুন বছরের ৪ জানুয়ারি দ্বাদশ সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছেÑ এ বিষয়ে সন্দেহের কোনো অবকাশ নেই।
এর আগে গত বুধবার নির্বাচন কশিশনার (ইসি) আনিছুর রহমান বলেছিলেন, দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের তফসিল নভেম্বরে ঘোষণা করা হবে। নভেম্বরে ‘ইলেকশন ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম’ নামে একটি অ্যাপ চালুর পরেই তফসিল ঘোষণা করা হবে।
প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কাজী হাবিবুল আউয়াল জানিয়েছিলেন, অক্টোবরের শেষ সপ্তাহে অথবা নভেম্বরের শুরুতে দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করা হতে পারে। ৩০ জুলাই রাজধানীর আগারগাঁওয়ে ইসি সচিবালয়ে সাংবাদিকদের তিনি এ তথ্য জানান।
দেশ স্বাধীন হওয়ার পর অনুষ্ঠিত ১১টি জাতীয় সংসদ নির্বাচনে দেখা যায়, আওয়ামী লীগ প্রথম, সপ্তম, নবম, দশম ও একাদশ সংসদ নির্বাচনে জয়লাভ করেছে। বিএনপি দ্বিতীয়, পঞ্চম, ষষ্ঠ ও অষ্টম সংসদ নির্বাচনে জয় পায়।
অন্যদিকে, জাতীয় পার্টি তৃতীয় ও চতুর্থ সংসদ নির্বাচনে বিজয়ী হয়ে সরকার গঠন করে। সে হিসেবে আওয়ামী লীগ সবচেয়ে বেশি জয়লাভ করে সরকার গঠন করেছে। এগারোটি সংসদ নির্বাচনে ঘুরেফিরে তিনটি রাজনৈতিক দল ক্ষমতায় এসেছে। আওয়ামী লীগ পাঁচবার, বিএনপি চারবার এবং জাতীয় পার্টি দুবার ক্ষমতায় আসে। আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা চার দফায় প্রধানমন্ত্রী হিসেবে রয়েছে। বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া তিন দফায় প্রধানমন্ত্রী ছিলেন।
প্রথম জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় ১৯৭৩ সালের ৭ মার্চ। বাংলাদেশ স্বাধীনতা লাভের পর অনুষ্ঠিত প্রথম এই নির্বাচনে আওয়ামী লীগ ৩০০টি আসনের মধ্যে ২৯৩টি আসন লাভ করে সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন করে এবং বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে প্রধান করে সরকার গঠন করে। এ ছাড়াও জাসদ একটি, বাংলাদেশ জাতীয় লীগ একটি এবং পাঁচটি আসনে স্বতন্ত্র প্রার্থীরা জয়লাভ করেন। প্রথম সংসদে ১১ প্রার্থী বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হন। ৭ এপ্রিল সংসদের প্রথম অধিবেশন শুরু হয়। এ সংসদ দুই বছর ছয় মাস স্থায়ী ছিল। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট শেখ মুজিবুর রহমানের হত্যাকাণ্ড সংঘটিত হয়। পরবর্তীতে ৬ নভেম্বর পর্যন্ত এ সংসদ কার্যকর ছিল।
দ্বিতীয় জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় ১৯৭৯ সালের ১৮ ফেব্রুয়ারি। এতে বিএনপি ২০৭টি আসনে জয়লাভ করে। এই নির্বাচনে আওয়ামী লীগ দুই ভাগে বিভক্ত হয়ে অংশগ্রহণ করে। এর মধ্যে আওয়ামী লীগ (মালেক) ৩৯টি, আওয়ামী লীগ (মিজান) দুটি, জাসদ আটটি, মুসলিম লীগ ও ডেমোক্র্যাটিক লীগ ২০টি, ন্যাপ (মোজাফফর) একটি, বাংলাদেশ জাতীয় লীগ দুটি, বাংলাদেশ গণফ্রন্ট দুটি, বাংলাদেশ সাম্যবাদী দল একটি, বাংলাদেশ গণতান্ত্রিক আন্দোলন একটি, জাতীয় একতা পার্টি একটি এবং ১৬টি আসনে স্বতন্ত্র প্রার্থীরা জয়লাভ করেন।
তৃতীয় জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় ১৯৮৬ সালের ৭ মে। এই নির্বাচনে জাতীয় পার্টি ১৫৩টি আসনে বিজয়ী হয়। এ ছাড়াও আওয়ামী লীগ ৭৬টি জামায়াতে ইসলামী ১০টি, সিপিবি পাঁচটি, ন্যাপ (মোজাফফর) দুটি, ন্যাপ পাঁচটি, বাকশাল তিনটি, জাসদ (রব) চারটি, জাসদ (সিরাজ) তিনটি, মুসলিম লীগ চারটি, ওয়ার্কার্স পার্টি তিনটি এবং স্বতন্ত্র প্রার্থীরা ৩২টি আসনে জয়লাভ করেন। বিএনপিসহ কয়েকটি রাজনৈতিক দল এই নির্বাচন বর্জন করে।
চতুর্থ জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় ১৯৮৮ সালের ৩ মার্চ। নির্বাচনে জাতীয় পার্টি ২৫১টি আসনে জয়লাভ করে। অন্যদিকে আ স ম আব্দুর রবের নেতৃত্বাধীন সম্মিলিত বিরোধী দল ১৯টি, জাসদ (সিরাজ) তিনটি, ফ্রিডম পার্টি দুটি এবং স্বতন্ত্র প্রার্থীরা ২৫টি আসনে বিজয়ী হন। এই নির্বাচনে আওয়ামী লীগ, বিএনপি ও সিপিবিসহ অধিকাংশ রাজনৈতিক দল বর্জন করে।
পঞ্চম জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় ১৯৯১ সালের ২৭ ফেব্রুয়ারি। এতে বিএনপি ১৪০টি আসনে জয়ী হয়ে সরকার গঠন করে। এ ছাড়াও আওয়ামী লীগ ৮৮টি, জাতীয় পার্টি ৩৫টি, বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী ১৮টি, সিপিবি পাঁচটি, বাকশাল পাঁচটি, জাসদ (সিরাজ) একটি, ইসলামী ঐক্যজোট একটি, ওয়ার্কার্স পার্টি একটি, এনডিপি একটি, গণতন্ত্রী পার্টি একটি, ন্যাপ (মোজাফফর) একটি এবং অন্যান্য দল তিনটি আসনে জয়লাভ করে।
ষষ্ঠ জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় ১৯৯৬ সালের ১৫ ফেব্রুয়ারি। নির্বাচনে বিএনপি ২৭৮টি আসনে, ফ্রিডম পার্টি একটি এবং স্বতন্ত্র প্রার্থীরা ১০টি আসনে জয়লাভ করে। ভোটকেন্দ্রে গোলযোগের কারণে বাকি ১১টি আসনের ফল স্থগিত থাকে। নির্বাচনে ৪৯টি আসনে প্রার্থীরা বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় বিজয়ী হন। আওয়ামী লীগ, জাতীয় পার্টিসহ প্রায় সব বিরোধী দল এই নির্বাচন বর্জন করে। ফলে তিন মাসের মধ্যে আরেকটি নির্বাচন দিতে হয়।
সপ্তম জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় ১৯৯৬ সালের ১২ জুন। নির্বাচনে আওয়ামী লীগ ১৪৬টি আসনে জয়ী হয়ে সরকার গঠন করে। এ ছাড়াও নির্বাচনে বিএনপি ১১৬টি, জাতীয় পার্টি ৩২টি, জামায়াতে ইসলামী তিনটি, ইসলামী ঐক্যজোট একটি, জাসদ একটি ও স্বতন্ত্র প্রার্থী একটি আসনে বিজয়ী হন।
অষ্টম জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় ২০০১ সালের ১ অক্টোবর। নির্বাচেন বিএনপি ১৯৩টি আসনে জয়লাভ করে। এ ছাড়াও আওয়ামী লীগ ৬২টি, জাতীয় পার্টি ১৪টি, জামায়াতে ইসলামী ১৭টি, বিজেপি চারটি, জেপি (মঞ্জু) একটি, ইসলামী ঐক্যজোট দুটি, কৃষক শ্রমিক জনতা লীগ একটি ও স্বতন্ত্র প্রার্থীরা ছয়টি আসনে বিজয়ী হন।
নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় ২০০৮ সালের ২৯ ডিসেম্বর। আওয়ামী লীগ ২৩০টি আসনে জয়লাভ করে। এই নির্বাচনে বিএনপি ৩০টি, জাতীয় পার্টি ২৭টি, জাসদ তিনটি, জামায়াতে ইসলামী দুটি, ওয়ার্কার্স পার্টি দুটি, বিজেপি একটি, এলডিপি একটি ও স্বতন্ত্র প্রার্থীরা চারটি আসনে জয়লাভ করেন।
দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি। এই নির্বাচনে ৩০০ আসনের মধ্যে ১৫৩টি আসনে প্রার্থীরা বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হন। বাকি ১৪৭টি আসনে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। নির্বাচনে আওয়ামী লীগ ২৩৪টি, জাতীয় পার্টি ৩৪টি, ওয়াকার্স পার্টি ছয়টি, জাসদ পাঁচটি, জাতীয় পার্টি (জেপি) দুটি, তরিকত ফেডারেশন দুটি, বিএনএফ একটি, স্বতন্ত্র প্রার্থীরা ১৬টি আসনে জয়লাভ করেন। প্রধান বিরোধী দল বিএনপিসহ অধিকাংশ রাজনৈতিক দল এই নির্বাচন বর্জন করে।
একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় ২০১৮ সালের ৩০ ডিসেম্বর। একটি আসনের প্রার্থী মারা যাওয়ায় ২৯৯টি আসনে নির্বাচন হয়। একটি আসনের ফল স্থগিত থাকায় বাকি ২৯৮টি আসনের মধ্যে আওয়ামী লীগ নৌকা প্রতীকে এককভাবে ২৫৯টি আসনে জয়লাভ করে। এ ছাড়াও জাতীয় পার্টি লাঙল প্রতীকে ২০টি, বিএনপি ধানের শীষ প্রতীকে পাঁচটি, বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টি তিনটি, জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল (জাসদ) দুটি, বিকল্পধারা বাংলাদেশ দুটি এবং জাতীয় পার্টি (জেপি) একটি, তরিকত ফেডারেশন একটি ও গণফোরাম দুটি আসনে জয়লাভ করে। অন্যদিকে, তিনটি আসনে জয় পেয়েছেন স্বতন্ত্র প্রার্থীরা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *